প্রয়োজনে ফোন করুন:
+88 01978 334233

ভাষা পরিবর্তনঃ

Cart empty

কুষ্টিয়া শহরের ইতিহাস

কুষ্টিয়া শাহী মসজিদ মোঘল আমল থেকে এই অঞ্চলের সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সাইন বহন করে। কুষ্টিয়া মীর মোশাররফ হোসেন (১৮৪৭-১৯১২), বাঘাযতীন(১৮৭৯-১৯১৫) এবং লালন ফকিরের (১৭৭৪-১৮৯০) সহ অনেক ঐতিহাসিক মানুষের জন্মস্থান। নোবেল বিজয়ী কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এই জেলার শিলাইদাহ (Shelaidaha) তার জীবনের একটি অংশ বসবাস করেন এবং সেখানে বসবাস করার সময় তার স্মরণীয় কবিতা কিছু তৈরি। তবে, ব্রিটিশ শাসনের সময় কুষ্টিয়া পৃথক একটি জেলা ছিল না - এটা (এখন পশ্চিম বঙ্গের) নদীয়া জেলার অংশ ছিল। কুষ্টিয়া পৌরসভা ১৮৬৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।

ইতিহাস পড়ে যা বুঝা যায় মুঘল আমল থেকেই এই জেলা উন্নত। একটি নদী বন্দর সম্রাট শাহজাহানের রাজত্ব কালে জেলার জীবনমান উন্নত করেছিল। ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির পোর্ট ব্যাপক ব্যবহার করা হলেও নীল রোপনকারীতে এবং ব্যবসায়ীদের পৌরসভা হত্তয়াই, শুরু করেন এইখানে বসতি। একটি রেল সংযোগ, কলকাতা সঙ্গে ১৮৬০ সালে তৈরি করা হয়েছিল। শহরে মিল এবং কারখানার জন্য একটি লোভনীয় অবস্থান তৈরি করে ব্রিটিশ ভারত। সেই সময় কুষ্টিয়াকে (তখন নদীয়া) রাজধানী হিসেবে গড়ে তুলে। এর সাথে যুক্ত হয় যজ্ঞেশ্বর (Jagneswar) ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস (১৮৯৬), রেনউইক এবং কোম্পানি (১৯০৪) এবং মোহিনী মিলস (১৯১৯)।

১৮৬০ সালে, নীল বিদ্রোহ বঙ্গ প্রদেশ জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে । কুষ্টিয়া জেলার নীল বিদ্রোহী প্যারীসুন্দরী এই আন্দোলনে অগ্রদূতের অন্যতম। সরকারের ট্যাক্স পরিশোধ করা থেকে বিরত থাকুন কুষ্টিয়া সব নীল কৃষকদের অনুপ্রাণিত করে। পরবর্তীকালে, নীলকমিশন রিপোর্ট প্রকাশনার সঙ্গে, একটি আইন নিষিদ্ধ পাস হয় নীল চাষ এবং পরিমাপ জন্য কৃষকদের বল প্রয়োগ আন্দোলন শেষ করেন।

১৯৪৭ সালে ভারত বিভাগের সময়, কুষ্টিয়া, কুষ্টিয়া সদর, চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর মহকুমা গঠিত, একটি পৃথক জেলা করা হয়। কুষ্টিয়া শহরে আবার (এছাড়াও জিকে প্রকল্প নামে পরিচিত) গঙ্গা-কপোতাক্ষ প্রকল্প প্রতিষ্ঠার সদর দপ্তর এবং সরকারী অফিস একটি সংখ্যা সঙ্গে ১৯৫৪ সালে উন্নয়নের জন্য আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে। জিকে প্রকল্প ১৯৬২-১৯৬৩ জন্মায় এই প্রকল্পের অধীনে প্রথম ফসল সঙ্গে, একটি বড় পৃষ্ঠ সেচ ব্যবস্থা করা হয়।

কুষ্টিয়া জেলা বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ উল্লেখযোগ্য অবদান ছিল। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ২৭ বালুচর রেজিমেন্টের একটি ১৪৭ সদস্যের কোম্পানী যশোর সেনানিবাসে তার বেস থেকে মার্চ ২৫ ১৯৭১ কুষ্টিয়া পৌঁছেছেন। তারা প্রথমে স্থানীয় পুলিশ স্টেশন দখল করে এবং সেখানে একটি ফাঁড়ি নিষ্পত্তি, কিন্তু শীঘ্রই পুলিশ, আনসার, ছাত্র এবং স্থানীয় মানুষের একটি গ্রুপ থেকে যথেষ্ট প্রতিরোধের সম্মুখীন। ১ এপ্রিল, পাকিস্তানি সেনাবাহিনী সম্পূর্ণ দমন করা ক্ষমতা ছিল (overpowered) কিন্তু পরাজিত করে মুক্তি বাহিনী কুষ্টিয়া নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করে। পরে এপ্রিল ১৭, ১৯৭১ বাংলাদেশ সরকারের মধ্যে নির্বাসিত আনুষ্ঠানিক ভাবে বৈদ্যনাথতলা (Baidyanathtala) এ স্বাধীনতা ঘোষণার ঘোষণা করেন। পরবর্তীকালে, পাকিস্তান সেনাবাহিনী ও বিদ্রোহীদের মধ্যে যুদ্ধ কুমারখালী উপজেলার বংশীতলা (Bangshitala), ও দৌলতপুর উপজেলা সহ জেলার অনেক স্থানে ঘটেছে।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প কুষ্টিয়া জেলার গ্রহণ করা হয়। কুষ্টিয়া ও ঝিনাইদহ জেলার শান্তিডাঙ্গা পাড়া অধীনে দুলালপুর - নভেম্বর ২২, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, ১৯৭৯ ভিত্তিপ্রস্তর হয়। তবে, ১৯৮২ সালে বিশ্ববিদ্যালয় গাজীপুর স্থানান্তরিত হয় এবং ছাত্র ভর্তি ১৯৮৫-৮২ এর সময় শুরু করেন। পরে জানুয়ারী ১৯৯০-১০, বিশ্ববিদ্যালয় ফিরে শান্তিডাঙ্গা দুলালপুর তার মূল স্থানে স্থানান্তরিত হয়। ১৯৮৪ সালে, কুষ্টিয়া দুই উপজেলা: চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুর আলাদা জেলা নামকরণ হয়েছে।

মন্তব্য

মানুষ এবং সমাজের ক্ষতিসাধন হয় এমন মন্তব্য হতে বিরত থাকুন।


নতুন তথ্য

কুষ্টিয়ার মোহিনী মিলের ঐতিহ্য নতুন রুপে ফিরে আসুক আগামী প্রজন্মের কাছে এক সময়ের এশিয়ার সর্ববৃহৎ ঐতিহ্যবাহী বস্ত্রকল কুষ্টিয়ার মোহিনী মিল আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ব্যাপক...
ভাঙল কুষ্টিয়ায় বাউল সম্রাট ফকির লালন শাহ্‌ এর তিরোধান দিবসের ৩ দিনের অনুষ্ঠান কুষ্টিয়ার ছেউড়িয়ায় সাঙ্গ হলো বাউল সম্রাট ফকির লালন শাহ’র ১২৯তম তিরোধান দিবস অনুষ্ঠান। “বাড়ির কাছে...
লালনের আদর্শে আধুনিক দেশ ও সমাজ গড়ে তুলতে হবে জাতীয় সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেছেন, সবকিছুর...
লালন সাঁইজীর সঠিক দর্শন ছেড়ে অনেকেই এখন ভুল ব্যাখ্যা দিতে তৎপর ! আজ থেকে ১২৯ বছরের ব্যবধানে সেই সময়ের মরমী সাধক বাবা লালন সাঁইজীর সঠিক দর্শন, দিক নিদের্শনা,...
শাঁইজীর আখড়াবাড়ীতে মানুষ রতনের ভীড় “বাড়ির কাছে আরশিনগর, সেথা এক পড়শি বসত করে” এই স্লোগানে আজ বুধবার থেকে শুরু হচ্ছে ৩ দিনব্যাপী বাউল সম্রাট মরমী সাধক ফকির লালন...

নতুন তথ্য

কুষ্টিয়া জেলা পরিষদের ইতিহাস ১৮১৬ এবং ১৮১৯ সালের স্থানীয়ভাবে ফেরী ব্যবস্থাপনা ও রক্ষনাবেক্ষণ, সড়ক/ সেতু নির্মাণ ও মেরামতের জন্য বৃটিশ সরকার...
সাঁতারে বিশ্ব রেকর্ড সৃষ্টিকারী কানাই লাল শর্মা কানাই লাল শর্মা (জন্মঃ ৭ই নভেম্বর ১৯৩০ইং, মৃত্যুঃ ১৯শে আগস্ট ২০১৯ইং) কুষ্টিয়ার হাটস হরিপুর ইউনিয়নের শালদহ গ্রামে...
Photo credit: Najmul Islam - Golden Bangla বাংলাদেশের সব চাইতে বেশী সুখী মানুষের বসবাস এবং ১৩তম বড় শহর কুষ্টিয়া শহর। সকল ফসল উৎপাদনে সক্ষম কুষ্টিয়ার মানুষ। নদী-নালা,...
সংগীতশিল্পী খালিদ হোসেন খালিদ হোসেন (জন্মঃ- ৪ ডিসেম্বর ১৯৩৫ - মৃত্যুঃ- ২২ মে ২০১৯) ছিলেন একজন বাঙালি নজরুলগীতি শিল্পী এবং নজরুল গবেষক। তিনি নজরুলের ইসলামী গান...
হয়রত সোলাইমান শাহ্‌  চিশতী (রঃ) মাজার শরীফ আধ্যাত্মিক সাধক পুরুষ সোলাইমান শাহ। কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার গোলাপ নগরে রয়েছে সোলাইমান শাহের...

Subscribe Our Newsletter

welcome to our newsletter subscription

প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রকাশকঃ- সালেকউদ্দিন শেখ সুমন

Made in kushtia

Go to top