Language Switcher:

Cart empty

কুরবানীর ইতিহাস

কুরবানী শব্দের উৎপত্তি হলো কুরবান শব্দ থেকে। কুরবান শব্দের অর্থাৎ নৈকট্য, সান্নিধ্য, উৎসর্গ। সুতরাং কুরবানী অর্থ উৎসর্গ করার মাধ্যমে আল্লাহ তা’আলার নৈকট্য লাভ করা। মানব ইতিহাসে সর্বপ্রথম কুরবানী হল হযরত আদম (আঃ) -এর দুই পুত্র হাবিল ও কাবিলের কুরবানী। কাহিনীটি সূরা মায়েদার ২৭ নম্বর আয়াতে বর্ণিত হয়েছে।

ঘটনাটি হলো; “যখন হযরত আদম ও হাওয়া (আঃ) পৃথিবীতে আগমন করেন এবং তাঁদের সন্তান প্রজনন ও বংশ বিস্তার আরম্ভ হয়, তখন প্রতি গর্ভ থেকে একটি পুত্র ও একটি কন্যা- এরূপ যমজ সন্তান জন্ম গ্রহণ করত। তখন ভাই-বোন ছাড়া হযরত আদমের (আঃ) আর কোন সন্তান ছিল না। অথচ ভাই-বোন পরস্পর বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে পারে না। তাই আল্লাহ তা’আলা উপস্থিত প্রয়োজনের খাতিরে আদম (আঃ)-এর শরীয়তে বিশেষভাবে এ নিদের্শ জারি করেন যে, একই গর্ভ থেকে যে যমজ পুত্র ও কন্যা জন্মগ্রহণ করবে, তারা পরস্পর সহোদর ভাই-বোন গণ্য হবে। তাদের মধ্যে বৈবাহিক সম্পর্ক হবে হারাম। কিন্তু পরবর্তী গর্ভ থেকে জন্মগ্রহণকারী পুত্রের জন্যে সম্পর্ক প্রথম গর্ভ থেকে জন্মগ্রহণকারিনী কন্যা সহোদরা বোন গণ্য হবে না। তাদের মধ্যে পরস্পর বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া বৈধ। কিন্তু ঘটনাচক্রে কাবিলের সহজাত সহোদরা বোনটি ছিল পরমা সুন্দরী এবং হাবিলের সহজাত বোনটি ছিল কুশ্রী ও কদাকার। বিবাহের সময় হলে শর’য়ী নিয়মানুযায়ী হাবিলের সহজাত কুশ্রী বোন কাবিলের ভাগে পড়ল। এতে কাবিল অসন্তুষ্ট হয়ে হাবিলের শত্রু হয়ে গেল। সে জেদ ধরল যে, আমার সহজাত বোনকেই আমার সাথে বিবাহ দিতে হবে। হযরত আদম (আঃ) তাঁর শরীয়তের আইন অনুযায়ী কাবিলের আবদার প্রত্যাখ্যান করলেন। অতঃপর হযরত আদম (আঃ) হাবিল ও কাবিলের মতভেদ দূর করার উদ্দেশ্যে বললেন; তোমরা উভয়েই আল্লাহর জন্যে নিজ নিজ কুরবানী পেশ কর। যার কুরবানী পরিগৃহীত হবে, সে-ই কন্যার পানি গ্রহণ করবে। হযরত আদম (আঃ)-এর নিশ্চিত বিশ্বাস যে, যেই সত্য পথে আছে তার কুরবানীই গৃহীত হবে।

তৎকালে কুরবানী গৃহীত হওয়ার একটি সুস্পষ্ট নিদর্শন ছিল এই যে, আকাশ থেকে একটি অগ্নিশিখা এসে কুরবানীকে ভস্মিভূত করে আবার অন্তর্হিত হয়ে যেত। যে কুরবানী অগ্নি ভস্মিভূত করতো না, তাকে প্রত্যাখ্যাত মনে করা হতো।

হাবিল ভেড়া, দুম্বা ইত্যাদি পশু পালন করতো। সে একটি উতকৃষ্ট দুম্বা কুরবানী করলো। আর কাবিল করতো কৃষি কাজ। সে কিছু শস্য-গম ইত্যাদি কুরবানীর জন্য পেশ করলো। অতঃপর নিয়মানুযায়ী আকাশ থেকে অগ্নিশিখা অবতরণ করে হাবিলের কুরবানীটি ভস্মীভূত করে দিলো এবং কাবিলের কুরবানী যেমন ছিল তেমনই পড়ে রইল। এ অকৃতকার্যতায় কাবিলের দুঃখ ও ক্ষোভ আরো বেড়ে গেল।

সে আত্মসংবরণ করতে পারলো না এবং প্রকাশ্যে তার ভাইকে বলে; অবশ্যই আমি তোমাকে হত্যা করবো। হাবিল তখন ক্রোধের জবাবে ক্রোধ প্রদর্শন না করে একটি মার্জিত ও নীতিগত বাক্য উচ্চারণ করলো;

[সুরা : আল মায়েদা, আয়াত : ২৮-৩১]অনুবাদ :

২৮. (হাবিল বলল) তুমি যদি আজ আমাকে হত্যা করার জন্য আমার দিকে তোমার হাত বাড়াও, তবুও আমি তোমাকে হত্যা করার জন্য তোমার প্রতি আমার হাত বাড়াব না। কারণ, আমি আল্লাহকে ভয় করি, যিনি সৃষ্টিকুলের প্রভু।

২৯. বরং আমি চাই তুমি আমার গুনাহ এবং তোমার গুনাহের বোঝা একাই তোমার মাথায় তুলে নাও; আর এভাবেই তুমি জাহান্নামের অধিকারী হয়ে পড়ো। এ হচ্ছে জালেমদের কর্মফল।

৩০. শেষ পর্যন্ত তার কুপ্রবৃত্তি তাকে নিজ ভাইয়ের হত্যার কাজে উসকানি দিল, একপর্যায়ে সে তাকে খুন করেই ফেলল। এর ফলে সে ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হয়ে গেল।

৩১. অতঃপর আল্লাহ তায়ালা সেখানে একটি কাক পাঠালেন। কাকটি হত্যাকারীর সামনে এসে মাটি খুঁড়তে লাগল। উদ্দেশ্য, তাকে দেখানো, কিভাবে সে তার ভাইয়ের লাশ লুকিয়ে রাখবে। এটা দেখে সে নিজে নিজে বলতে লাগল, হায় আমি তো এই কাকটির চেয়েও নিকৃষ্ট হয়ে পড়েছি, আমি তো আমার ভাইয়ের লাশটাও গোপন করতে পারলাম না। অতঃপর সে সত্যি সত্যিই অনুতপ্ত হলো।

এতে কাবিলের প্রতি তার সহানুভূতি ও শুভেচ্ছা ফুটে উঠেছিল। হাবিল বলেছিল;

তিনি আল্লাহভীরু পরহেজগারের কর্মই গ্রহণ করেন। সুতরাং তুমি পরহেজগারী অবলম্বন করলে তোমার কুরবানীও গৃহীত হতো। তুমি তা করো নি, তাই তোমার কুরবানী প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। এতে আমার দোষ কোথায়…?

কুরবানী দাতা ‘হাবিল’ যিনি মনের ঐকান্তিক আগ্রহ সহকারে আল্লাহর নৈকট্য ও সন্তুষ্টি লাভের জন্যে একটি অতি সুন্দর দুম্বা কুরবানী রূপে পেশ করেন। ফলে তার কুরবানী কবুল হয়। পক্ষান্তরে ‘কাবিল’ সে অমনোযোগী অবস্থায় কিছু খাদ্য-শস্য কুরবানী হিসেবে পেশ করে। ফলে তার কুরবানী কবুল হয় নি। সুতরাং প্রমাণিত হলো কুরবানী মনের ঐকান্তিক আগ্রহ ছাড়া কবুল হয় না।

প্রত্যেক যুগেই কুরবানীর বিধান ছিলঃ

প্রকৃত পক্ষে কুরবানীর ইতিহাস ততোটা প্রাচীন যতটা প্রাচীন দ্বীন-ধর্ম অথবা মানবজাতির ইতিহাস। মানবজাতির জন্যে আল্লাহর পক্ষ থেকে যত শরীয়ত নাযিল হয়েছে, প্রত্যেক শরীয়তের মধ্যে কুরবানী করার বিধান ছিল। প্রত্যেক উম্মতের ইবাদতের এ ছিল একটা অপরিহার্য অংশ। আল্লাহ তা’আলা বলেন; “আর আমি প্রত্যেক উম্মতের জন্যে কুরবানীর এক রীতি-পদ্ধতি নির্ধারণ করেছি, যেন তারা ঐসব পশুর উপর আল্লাহর নাম নিতে পারে। যে সব তিনি তাদেরকে দান করেছেন।” (সূরা হজ্ব: ৩৪)

কুরবানীর ইতিহাসের মধ্যে হযরত ইবরাহীম (আঃ) ও তাঁর পুত্র হযরত ইসমাঈল (আঃ)-এর মধ্যে যে ঘটনার অবতারণা হয়েছে তা-ই হলো মহান স্মরণীয় ইতিহাস। কুরআন মাজীদের সূরা সাফ্ফাতের ১০০-১০৮ আয়াতে এই ইতিহাস আলোচনা করা হয়েছে নিচে আয়াতটি তুলে ধরা হলো।

হে আমার প্রতিপালক! আমাকে সৎকর্মপরায়ণ সন্তান দান করুন। অতঃপর সে (সন্তান) যখন তার পিতার সাথে কাজ করার মত বয়সে উপনীত হলো তখন ইবরাহীম (আঃ) বললেন; হে আমার বৎস! আমি স্বপ্নে দেখি যে, তোমাকে যবেহ করছি, এখন তোমার অভিমত কি বল? সে বললো; হে আমার পিতা! আপনি যা আদিষ্ট হয়েছেন তাই করুন। আল্লাহ ইচ্ছা করলে আপনি আমাকে ধৈর্যশীলদের অর্ন্তভূক্ত পাবেন। যখন তারা উভয়ে আনুগত্য প্রকাশ করলো এবং তিনি (ইবরাহীম) তাকে (পুত্র) কাত করে (কুরবানী করার জন্যে) শোয়ালেন তখন আমি তাকে আহ্বান করে বললাম; হে ইবরাহীম! তুমি তো স্বপ্নাদেশ সত্যিই পালন করলে! এভাবেই আমি সৎকর্মশীলদেরকে পুরস্কৃত করে থাকি। নিশ্চয় এটা ছিল এক স্পষ্ট পরীক্ষা। আমি তাকে মুক্ত করলাম এক মহান কুরবানীর বিনিময়ে। আমি এটা (তার আদর্শ) পরবর্তীদের স্মরণে রেখেছি।

প্রকৃত পক্ষে কুরবানী এমন এক সংকল্প, দৃঢ় বিশ্বাস, আত্মসমর্পণ ও জীবন দেয়ার বাস্তব বহি:প্রকাশ যে, মানুষের কাছে যা কিছু আছে তা সবই আল্লাহর এবং তাঁরই পথে তা উৎসর্গীকৃত হওয়া বুঝায়। এটা এ সত্যেরও নিদর্শন যে, আল্লাহর ইংগিত হলেই বান্দাহ তাঁর রক্ত দিতে দ্বিধা করে না। হযরত ইবরাহীম (আঃ) মূলত তা-ই প্রমাণ করলেন। বস্তুত এভাবে আত্মসমর্পণ ও জীবন বিলিয়ে দেয়ার নামই হলো ঈমান, ইসলাম, ও ইহসান।

উম্মতে মুহাম্মদীর (আমাদের) উপর কুরবানীর নির্দেশঃ

মহান আল্লাহ বলেন; অতএব তুমি তোমার প্রভুর উদ্দেশ্যে নামায পড় এবং কুরবানী কর। (সূরা কাওছার: ২) এ কুরবানী হতে হবে একনিষ্ঠভাবে আল্লাহ তা’আলারই সন্তুষ্টির জন্যে। প্রকৃতপক্ষে সকল দৈহিক ইবাদত বা আনুগত্য এবং সকল আর্থিক ত্যাগ সম্বলিত ইবাদতের উদ্দেশ্য হতে হবে একমাত্র আল্লাহর জন্যে। এক্ষেত্রে তাঁর পরিবর্তে বা তাঁর সাথে আর কারো সন্তুষ্টি অর্জন লক্ষ্য হতে পারে না। এটাই হলো আল্লাহ তা’আলার নির্দেশ। আল্লাহ বলেন; হে নবী! আপনি বলুন, আমার নামায আমার কুরবানী, আমার জীবন, আমার মরণ সবকিছু আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের জন্যে। তাঁর কোন শরীক নেই, এ নির্দেশই আমাকে দেয়া হয়েছে আর আমি হলাম সবার আগে তাঁর অনুগত বান্দা। (সূরা আন’আম: ১৬২-৬৩)

এ কুরবানী শুধু জীবনে কোন এক সময়ের জন্যে নয়, বরং প্রতি বছরই এ কুরবানী দিতে হয়, নবী (সঃ) এর আমল থেকেই তা সুপ্রমাণিত। হযরত উমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত; রাসূলে কারীম (সঃ) মদীনায় দশ বছর অবস্থান করেছেন এবং প্রতি বছরই কুরবানী করেছেন। (তিরমিযী)

আল্লাহ আমাদের সকলকে প্রকতৃ কুরবানী করার তাওফীক ও শক্তি দান করুন।

যে ধরনের পশু কুরবানী করা যাবেঃ

kurbani Medium

ছবিতে দেয়া পশু গুলো ছাড়াও যেসকল চার পায়া প্রানী মানুষের খাবার জন্য হালাল করা হয়েছে তাও কোরবানী করা যাবে।

উবাইদ ইবনে ফাযরুজ (রা) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি আল-বারাআ ইবনে আযেব (রা.)-কে জিজ্ঞেস করলাম, কোন ধরণের পশু কুরবানী করা জায়েজ নয়?তিনি বললেন

রাসুলুল্লাহ (সা.) আমাদের মাঝে দাঁড়ালেন; আমার আঙ্গুলগুলো তার আঙ্গুলের চেয়ে ছোট ও তুচ্ছ; আমার আঙ্গুলের গিরাগুলিও তার আঙ্গুলের গিরার চেয়ে ছোট ও তুচ্ছ (সন্মানার্থে এভাবে বলা হয়েছে)

তিনি আঙ্গুল দিয়ে ইশারা করে বললেনঃ

চার প্রকারের ক্রটিযুক্ত পশু কুরবানী করা জায়েজ নয়; অন্ধ- যার অন্ধত্ব সুষ্পষ্ট, রুগ্ন- যার রুগ্নতা সুষ্পষ্ট, খোঁড়া- যার খোঁড়ামী সুষ্পষ্ট, বৃদ্ধ ও দুর্বল যার হাড়ের মজ্জা নাই (শুকিয়ে গেছে);

আলী (রা) থেকে বর্ণিত,

তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন; আমরা যেন (কুরবানীর পশুর) চোখ ও কান উত্তমরুপে দেখে নেই;আমরা যেন কুরবানী না করি এমন পশু দিয়ে যা কানা বা অন্ধ,

যার কান অগ্রভাগ বা শেষের অংশ কাটা; যার কান পাশের দিকে ফেঁড়ে গেছে বা গোলাকার ছিদ্র করা হয়েছে।

আলী (রা) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন,

রাসুলুল্লাহ (সা.) কান কাটা ও শিং ভাঙ্গা পশু দিয়ে কুরবানী করতে নিষেধ করেছেন।

পশুর মাংস খাওয়া কি আমাদের উচিৎ ?

যারা বলেন পশুর মাংস খাওয়া যাবেনা এটা অমানবিক তাদের জন্য নিচের ছবিটা দেওয়া হল।

teeth copy Medium

  1. নম্বর ছবিটা একটি বাঘের দাঁত যে মাংসাসি।
  2. নম্বর ছবিটা জন মানুষের দাঁত।
  3. নম্বর ছবিটা একটি গরুর দাঁতের যে তৃনভোজি।

এবার আপনারাই বিচার করুন ১,৩ এই ২টি ছবির দাঁতের মধ্যে কার দাঁতের সাথে মানুষের(২ নাম্বর ছবির) দাঁতের সাথে মিল আছে। ১, ২ নম্বর ছবির গোল চিন্হকরা দাঁত গুলো দেখুন এই দাঁত গুলো কেবল মাংসাসি প্রানির থাকে। ৩নম্বর ছবিটিতে দেখুন গরুর এইধরনের দাঁত নেই তাই এরা তৃনভোজি।

তাহলে আমরা কিভাবে বলতে পারি যে মানুষ কেবল মাত্র ঘাস লতা পাতা খেয়ে বেচে থাকবে, হালাল প্রানীর মাংস খেতে পারবেনা।

এই পোষ্ট টি কাউকে ছোট বা কাউকে বড় দেখাবার যন্য নয়, আমি কেবল ইসলামের ইতিহাসে রেখে যাওয়া ঘটনার অস্তিত্য তুলে ধরার চেষ্টা করেছি।

চলুন আমরা সবাই এই শিশু টির মতন আল্লাহতালার কাছে দোয়া চাই আমরা যেন সকল মুসলিম, নওমুসলিম, অমুসলিম মিলে সুন্দর একটি পৃথিবী গড়তে পারি।

নতুন তথ্য

সৃষ্টিশীল কারিগর কবি ও স্থপতি রবিউল হুসাইন রবিউল হুসাইন (জন্মঃ ৩১ জানুয়ারি ১৯৪৩ সাল - মৃত্যুঃ ২৬ নভেম্বর, ২০১৯ সাল ইংরেজি) সৃষ্টিশীল কারিগর তিনি একাধারে কবি, স্থপতি,...
বাংলা গানের অমর গীতিকবি এবং সংগীতস্বাতী -  মাসুদ করিম মাসুদ করিম ( জন্মঃ ১৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৩৬ - মৃত্যুঃ- ১৬ নভেম্বর, ১৯৯৬) ছিলেন একজন খ্যাতিমান...
কুষ্টিয়ার মোহিনী মিলের ঐতিহ্য নতুন রুপে ফিরে আসুক আগামী প্রজন্মের কাছে এক সময়ের এশিয়ার সর্ববৃহৎ ঐতিহ্যবাহী বস্ত্রকল কুষ্টিয়ার মোহিনী মিল আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ব্যাপক...
ভাঙল কুষ্টিয়ায় বাউল সম্রাট ফকির লালন শাহ্‌ এর তিরোধান দিবসের ৩ দিনের অনুষ্ঠান কুষ্টিয়ার ছেউড়িয়ায় সাঙ্গ হলো বাউল সম্রাট ফকির লালন শাহ’র ১২৯তম তিরোধান দিবস অনুষ্ঠান। “বাড়ির কাছে...
লালনের আদর্শে আধুনিক দেশ ও সমাজ গড়ে তুলতে হবে জাতীয় সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেছেন, সবকিছুর...

নতুন তথ্য

কুষ্টিয়া জেলা পরিষদের ইতিহাস ১৮১৬ এবং ১৮১৯ সালের স্থানীয়ভাবে ফেরী ব্যবস্থাপনা ও রক্ষনাবেক্ষণ, সড়ক/ সেতু নির্মাণ ও মেরামতের জন্য বৃটিশ সরকার...
সাঁতারে বিশ্ব রেকর্ড সৃষ্টিকারী কানাই লাল শর্মা কানাই লাল শর্মা (জন্মঃ ৭ই নভেম্বর ১৯৩০ইং, মৃত্যুঃ ১৯শে আগস্ট ২০১৯ইং) কুষ্টিয়ার হাটস হরিপুর ইউনিয়নের শালদহ গ্রামে...
Photo credit: Najmul Islam - Golden Bangla বাংলাদেশের সব চাইতে বেশী সুখী মানুষের বসবাস এবং ১৩তম বড় শহর কুষ্টিয়া শহর। সকল ফসল উৎপাদনে সক্ষম কুষ্টিয়ার মানুষ। নদী-নালা,...
সংগীতশিল্পী খালিদ হোসেন খালিদ হোসেন (জন্মঃ- ৪ ডিসেম্বর ১৯৩৫ - মৃত্যুঃ- ২২ মে ২০১৯) ছিলেন একজন বাঙালি নজরুলগীতি শিল্পী এবং নজরুল গবেষক। তিনি নজরুলের ইসলামী গান...
হয়রত সোলাইমান শাহ্‌  চিশতী (রঃ) মাজার শরীফ আধ্যাত্মিক সাধক পুরুষ সোলাইমান শাহ। কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা উপজেলার গোলাপ নগরে রয়েছে সোলাইমান শাহের...

Subscribe Our Newsletter

welcome to our newsletter subscription

প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রকাশকঃ- সালেকউদ্দিন শেখ সুমন

Made in kushtia

Go to top