fbpx
প্রয়োজনে ফোন করুন:
+88 01978 334233
খালি কার্ট

আকবর হোসেন কথাসাহিত্যিক ও ঔপন্যাসিক

আকবর হোসেন (জন্মঃ ১ অক্টোবর ১৯১৭, মৃত্যুঃ ২রা জুন, ১৯৮১) কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার কয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। জনপ্রিয় বাঙালি কথাসাহিত্যিক ও ঔপন্যাসিক। তার বাবা হাজী আব্দুল বিশ্বাস ও মাতা ময়জান নেছা। ঊনিশ ও বিশশতক সময়কালে বাংলা সাহিত্যে অল্প কয়েকজন মুসলমান লেখকদের মধ্যে জনপ্রিয়তার শীর্ষে অবস্থানের সৌভাগ্য হয়েছিল ঔপন্যাসিক আকবর হোসেনের।

আকবর হোসেনের বাড়ি ছিল গড়াই তীরবর্তী কয়া গ্রামের কয়ার ঘাটের কাছাকাছি। নদীর সৌন্দর্য, খোলামেলা প্রাকৃতিক পরিবেশ, গ্রামীণ জীবনযাপন তার বালক-মনে দারুণভাবে প্রভাব ফেলেছিল, যা তার লেখক সত্তার উন্মেষে সাহায্য করে। তার জীবনের উল্লেখযোগ্য ঘটনা ধরা হয় কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সঙ্গে সাক্ষাৎ। বলা হয়ে থাকে, কবিগুরুর সাক্ষাৎ-স্মৃতি তার লেখক সত্তাকে পরিপক্ব করে তুলতে সাহায্য করেছিল।

বাংলা কথাসাহিত্যের অনেক আলোচক-সমালোচকের মতেই ‘বিষাদ সিন্ধু’ রচয়িতা-খ্যাত মীর মর্শারফ হোসেন (১৮৪৭-১৯১২) এবং ‘আনোয়ারা’ উপন্যাস-খ্যাত মজিবর রহমান সাহিত্যরত (১৮৬০-১৯২৩) এর পরেই পূর্ব বাংলায় আকবর হোসেন ছিলেন অন্যতম জনপ্রিয় কথাশিল্পী। তাঁর পিতা হাজী আব্দুল আলী বিশ্বাস। গ্রামের স্কুল থেকে প্রাথমিক বৃত্তিলাভ করে কুষ্টিয়া হাই স্কুলে ভর্তি হন। কুমিল্লা হাইস্কুল থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন।

পরবর্তীতে কলকাতা রিপন কলেজ থেকে বিএ ডিগ্রি নিয়ে চাকুরী জীবনের সূচনা করেন। দীর্ঘদিন তিনি সরকারি চাকুরিতে কর্মরত ছিলেন। ছাত্রাবস্থায় তাঁর সাহিত্য প্রতিভার উন্মেষ ঘটে। আকবর হোসেন ছাত্র জীবন থেকে সন্ধানী, শিখা, দৈনিক আজাদ, নবযুগ প্রভৃতি পত্র-পত্রিকায় লিখতেন। আকবর হোসেনের প্রথম উপন্যাস ‘অবাঞ্ছিত’ প্রকাশিত হয় ১৯৪১ সালে কলকাতায় যা এক সময়ে প্রায় ঘরে ঘরে পঠিত হতো। ১৯৬৯ সালে জুপিটার ফিল্মস্ কামাল আহমেদের পরিচালনায় এটিকে চলচ্চিত্রে রূপ দেয়, যা সারাদেশে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে। তাঁর উপন্যাসের পাঠক বরাবরই দুই বাংলায় একটা সন্তোষজনক অবস্থানে ছিল। পঞ্চাশ ও ষাটের দশকে যখন ভারতীয় লেখক ছাড়া আর কারো বই বাজারে বিক্রি হত না, সে সময় আকবর হোসেনই একমাত্র লেখক যাঁর বই ওপার বাংলার বইয়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাজার দখল করতে পেরেছিল।

দীর্ঘদিন তিনি সরকারি চাকুরিতে কর্মরত ছিলেন। মাধ্যমিক পর্যায়ের পড়াশুনাকালীন সময় থেকেই সাহিত্য চর্চা করতেন আকবর হোসেন। শিক্ষা জীবনের অবসান ঘটিয়ে পুরোদমে সাহিত্য চর্চা শুরু করেন তিনি। "সন্ধানী" "শিক্ষা" "দৈনিক আজাদ" ও "নবযুগ" ইত্যাদি পত্র-পত্রিকায় লেখা প্রকাশের ভেতর দিয়ে তাঁর সাহিত্য প্রতিভার উন্মেষ ঘটে। তার প্রথম উপন্যাস ‘অবাঞ্চিত’ বিপুল পাঠকপ্রিয়তা লাভ করে। তিনি সাহিত্য চর্চা করেছেন প্রকৃতি ও অন্তরের টানে। তার লেখায় সমাজ ও সংসার জীবন, পারিপার্শ্বিকতা আর তৎকালীন রাজনৈতিক পরিস্থিতি ধরা দিয়েছে সাবলীলভাবে। গ্রামীণ সমাজ সংস্কার, সাধারণ মানুষের আশা আকাঙ্খা, নাগরিক জীবনের দুঃখ-বেদনা, সমসাময়িক জীবনচিত্র, সমকালীন চিন্তা-চেতনা, চারপাশের চেনাজগত, রাজনৈতিক পরিস্থিতি, আমাদের অহংকার ৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং প্রেম ও রোমান্টিকতা প্রভৃতি দারুন মুন্সিয়ানার সাথে উপস্থাপিত হয়েছে আকবর হোসেনের উপন্যাস ও লেখনিতে। আকবর হোসেন-এর প্রথম উপন্যাস অবাঞ্চিত বিপুল পাঠকপ্রিয়তা লাভ করে। তাঁর বহুল জনপ্রিয় আরও কয়েকটি গ্রন্থ হলোঃ অবাঞ্ছিত (১৯৫০), কী পাইনি (১৯৫২), মোহমুক্তি (১৯৫৩), ঢেউ জাগে (১৯৬১), আলোছায়া (১৯৬৪), দু’দিনের খেলাঘরে (১৯৬৫), মেঘ বিজলী বাদল (১৯৬৮), নতুন পৃথিবী (১৯৭৪), দুষ্টক্ষত এবং আভা ও তার প্রথম পুরুষ। তাঁর প্রথম উপন্যাস ‘অবাঞ্ছিত’ এক সময়ে প্রায় ঘরে ঘরে পঠিত হতো। ১৯৬৯ সালে জুপিটার ফিল্মস কামাল আহমেদের পরিচালনায় এটিকে চলচ্চিত্রে রূপ দেয়, যা সারাদেশে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে।

তার রচিত ‘মেঘ বিজলী বাদল’ উপন্যাস নিয়ে ১৯৮২ সালে চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন কাজী নূরুল হক।

আকবর হোসেনের কাব্যে তার ভাষার সাবলীলতা কাব্যময়তা, গতিময়তা এবং শৈল্পিক সন্নিবেশ উপন্যাসগুলোকে জনপ্রিয় করেছে।

বঙ্কিম-রবীন্দ্রনাথ-শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের উত্তরপর্বে খুব ক্ষীণ পরিসরে যে ঐতিহাসিক পরিপ্রেক্ষিতে বাঙালি মুসলিম লেখকরা বেড়ে উঠেছেন, সেখানে আকবর হোসেনের উপস্থিতি ছিল ভিন্ন প্রতিভায় দীপ্ত। স্বতন্ত্র বিষয় ও আঙ্গিকে উপন্যাস লিখে তিনি ব্যক্তি ও সমাজের চিত্র তুলে ধরেছেন। তাঁর উপন্যাসে সে বিষয়গুলো সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে আরও ভিন্ন ও ইতিবাচক মাত্রিকতায় নতুন রূপ লাভ করে। বাঙালি মুসলমানের আধুনিক হওয়ার পথে আকবর হোসেন প্রমুখ লেখকদের আড়ষ্টতা থেকে বের হয়ে আসার প্রয়াস একটি নতুন ও সাহসী পদক্ষেপ ছিল। শব্দ ব্যবহার, কাহিনি বিন্যাস, চরিত্র চিত্রণ, শিল্প-সুষমা প্রকাশে তাঁর অপার দক্ষতা তাঁকে কালজয়ী ঔপন্যাসিকের আসনে বসিয়েছে। আকবর হোসেন যে সময়ে উপন্যাস রচনা করেন বাঙালি মুসলমানদের মধ্যে তখন শিল্পচর্চা কিংবা পাঠক-অভিনিবেশও তেমনটা ছিল না।

তাঁর উপন্যাসগুলো প্রধানত সামাজিক পর্যায়ের। সাধারণ মানবিক প্রবৃত্তির উপস্থাপন, চরিত্রায়নের বিচিত্রতা, জনপ্রিয় আখ্যান এসবই সাহিত্যকর্মের বৈশিষ্ট্য। তিনি মোট ৯টি উপন্যাস ও ১টি ছোটগল্প গ্রন্থ রচনা করেছেন। তাছাড়া রয়েছে কিছু কবিতা, সনেট, গান, প্রবন্ধ ও নাটক। আরো দুটি উপন্যাস অপ্রকাশিত রয়েছে। তাঁর প্রকাশিত উপন্যাস ‘অবাঞ্ছিত’ (১৯৫০), ‘মোহমুক্তি’ (১৯৫৩), ‘ঢেউ জাগে’ (১৯৬১); গল্পগ্রন্থ ‘আলো ছায়া’ (১৯৬৪), ‘দুদিনের খেলা ঘরে’ (১৯৬৫), ‘মেঘ বিজলী বাদল’ (১৯৬৮), ‘নতুন পৃথিবী’ (১৯৭৪), ‘আভা ও তার প্রথম পুরুষ’ (১৯৮৮)।

সময়কে সংরক্ষণ করার শৈল্পিক প্রয়াসে তিনি সফল, শিল্পী হিসেবে নিজ কর্তব্য পালনে তিনি একনিষ্ঠ। বাংলা সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করার লক্ষ্যে নীরবে নিরলসভাবে সাধনা করে গেছেন এই নিভৃতচারী। আজ এদেশে উপন্যাস, সাহিত্যে ঈর্ষণীয় জনপ্রিয়তার শীর্ষে যারা অবস্থান করছেন আকবর হোসেন এদের চেয়ে বেশি নিরেট ও শক্তিশালী ঔপন্যাসিক ছিলেন। তাঁর উপন্যাসের পাঠক বরাবরই দুই বাংলায় একটা সন্তোষজনক অবস্থানে ছিল। পঞ্চাশ ও ষাটের দশকে যখন ভারতীয় লেখক ছাড়া আর কারো বই বাজারে বিক্রি হত না, সে সময় আকবর হোসেনই একমাত্র লেখক যাঁর বই ওপার বাংলার বইয়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাজার দখল করতে পেরেছিল। এবং তিনিই একমাত্র লেখক, যিনি উপন্যাস বিক্রি করে ষাটের দশকে ঢাকায় বাড়ি করতে সক্ষম হয়েছিলেন। অথচ পঞ্চাশ ও ষাটের দশকের পাঠকমনে কাঁপন ধরিয়ে দেয়া কীর্তিমান এই ঔপন্যাসিক আজও এদেশ অবমূল্যায়িত রয়ে গেছেন। কিন্তু জাতীয় পর্যায়ে এই গুণী থেকে গেছেন অবহেলিত। এমনকি বাংলা একাডেমিও এই কথাশিল্পীর শিল্পকর্ম সংরক্ষণে কখনো উদ্যোগ নেয়নি। ফলে বর্তমান তরুণ প্রজন্মের কাছে প্রায় অপরিচিত এই সাহিত্যিক।

আকবর হোসেন লোকান্তরিত হয়েছেন ১৯৮১ সালের ২ জুন। আকবর হোসেন তাঁর সমসাময়িক জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক ছিলেন।

শিল্পীঃ- ও বন্ধুরে প্রানো বন্ধুরে - রুনা লায়লা

ছবি: মেঘ বিজলী বাদল, পরিচালক : কাজী নূরুল হক, ছবি মুক্তি: ১৮/০২/১৯৮৩

মন্তব্য


  • কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০তম বর্ষপূর্তি উদযাপন

    কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০তম বর্ষপূর্তি উদযাপন

  • কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০তম বর্ষপূর্তি উদযাপন

    কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০তম বর্ষপূর্তি উদযাপন

  • কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০তম বর্ষপূর্তি উদযাপন
    কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০তম বর্ষপূর্তি উদযাপন
  • পহেলা বৈশাখ ১৪২৫, কুষ্টিয়া পৌরসভা
  • পহেলা বৈশাখ ১৪২৫, মিরপুর কুষ্টিয়া
  • লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

    লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

  • লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

    লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

  • লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

    লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

  • লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

    লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

  • লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

    লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

  • কুষ্টিয়ার ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ

    কুষ্টিয়ার ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ

  • ডি সি অফিস নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

    ডি সি অফিস নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

  • ডি সি অফিস নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

    ডি সি অফিস নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

  • একতারা মোড় নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

    একতারা মোড় নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

  • একতারা মোড় নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

    একতারা মোড় নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

  • একতারা মোড় নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

    একতারা মোড় নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

  • কুষ্টিয়া পৌরসভা নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩
    কুষ্টিয়া পৌরসভা নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩
  • কুষ্টিয়া পৌরসভা বটতলা নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

    কুষ্টিয়া পৌরসভা বটতলা নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

  • লালন একাডেমী নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

    লালন একাডেমী নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

  • কুষ্টিয়া এন এস রোড নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

    কুষ্টিয়া এন এস রোড নববর্ষ উৎযাপন ১৪২৩

জনপ্রিয় তথ্য

আমি পারিনা আর পারিনা শুক্রবার, 19 এপ্রিল 2019
আমি পারিনা আর পারিনা আমি কেনো মরিনা আমি পারিনা আর পারিনা আমি কেনো মরিনা আজরাইল কি চিনেনা আমারে রে।
প্রেমের মানুষ ঘুমাইলে হয় যন্ত্রনা ভাবের মানুষ ঘুমাইলে হয় যন্ত্রনা ঘুমের ঘোরে স্বপ্নে দেখি প্রাণবন্ধুর আনাগোনা প্রেমের মানুষ ঘুমাইলে হয় যন্ত্রনা...
ভাব তরঙ্গে বৃহস্পতিবার, 18 এপ্রিল 2019
ভাব তরঙ্গে মওলার ভাব তরঙ্গে এসো আমার সঙ্গে মওলার ভাব তরঙ্গে এসো আমার সঙ্গে যদি কারো ভাল লাগে রে।।
আমি মন হারাইয়া বৃন্দাবনে বৃহস্পতিবার, 18 এপ্রিল 2019
আমি মন হারাইয়া বৃন্দাবনে আমায় অকূলে ভাসাইয়া গেলিরে আমায় অকূলে ভাসাইয়া গেলিরে ওরে আমার শ্যামল বংশিধারী।
বড় বিশ্বাস কইরা জায়গা দিলাম রে বৃহস্পতিবার, 18 এপ্রিল 2019
বড় বিশ্বাস কইরা জায়গা দিলাম রে ওরে আমার বুকের ও উপরে বড় বিশ্বাস কইরা জায়গা দিলাম রে ওরে আমার বুকের ও উপরে আমি আপন কইয়া, সব দিছি তোমারে...
মন তুই দেখবি বল কারে ? সোমবার, 15 এপ্রিল 2019
দেখবি বল কারে ? সকল গোল-মাল মিটে যাবে তারে দেখলে সকল গোল-মাল মিটে যাবে তারে দেখলে সু-নজরে দেখবি বল কারে মন তুই...
পিরিতি জান্নাতি ফল ধরলনা মোর বাগানে আমি কি সুখে জীবন খাটাবো, যাবো বলো কোনখানে আমি কি সুখে জীবন খাটাবো যাবো বলো কোনখানে? পিরিতি...
ভাবের দেশে চলরে মানুষ মঙ্গলবার, 16 এপ্রিল 2019
ভাবের দেশে চলরে মানুষ দেখবে খোদার মহান ছবি দেখবে খোদার মহান ছবি তোমার চর্ম চক্ষের দরজা খুলো ভাবের দেশে চলরে মানুষ...
বারী সিদ্দিকী মঙ্গলবার, 16 এপ্রিল 2019
বারী সিদ্দিকী আবদুল বারী সিদ্দিকী (১৫ নভেম্বর ১৯৫৪ - ২৪ নভেম্বর ২০১৭) বাংলাদেশের একজন খ্যাতিমান সংগীত শিল্পী, গীতিকার ও বংশী বাদক।...
কত আশা ছিল সোমবার, 15 এপ্রিল 2019
কত আশা ছিল আগে না জানিয়া পিছে না ভাবিয়া আগে না জানিয়া পিছে না ভাবিয়া।। জীবনও ভরিয়া কাঁদিতে হইলো

® সর্ব-সংরক্ষিত কুষ্টিয়াশহর.কম™ 2014-2019

1106670
আজকের ভিজিটরঃ আজকের ভিজিটরঃ 423

প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রকাশকঃ- সালেকউদ্দিন শেখ সুমন

Made in kushtia

Go to top