fbpx
প্রয়োজনে ফোন করুন:
+88 01978 334233

ভাষা পরিবর্তনঃ

খালি কার্ট

প্রাচীন জনপদ কুমারখালী

প্রাচীন জনপদ কুমারখালী। এর ইতিহাস-ঐতিহ্য কুষ্টিয়ার চেয়ে সমৃদ্ধ ও প্রাচীনতর। তাই ইংরেজ আমলের গোড়ার দিকে কুষ্টিয়ার পরিচয় দিতে বলা হতো "কুমারখালী-কুষ্টিয়া"। বাউলসম্রাট লালন শাহ, সাধক কাঙাল হরিনাথ, মোজাহেদ-নেতা কাজী মিয়াজান, বিপ্লবী-বীর বাঘা যতীন, সাহিত্যরথী মীর মশাররফ হোসেন, প্রজা-আন্দোলনের পুরোধা শামসুদ্দিন আহমদ প্রমুখ কুমারখালী থানার কৃতি সন্তান।

চৈতন্যদেবের আমলে কুমারখালীর নাম ছিল তুলসী গ্রাম। নবাব মুর্শিদকুলি খাঁ এ অঞ্চলের রাজস্ব আদায়ের জন্য কালেক্টর নিযুক্ত করেন কমরকুলি খাঁ কে। তার নাম থেকে আঞ্চলিক সদরের নাম হয় "কুমারখালী"। সাবেক 'কমরখালীর' বিবর্তিত রুপ বর্তমান 'কুমারখালী'। কুমারখালীর বিস্ত্তীর্ণ এলাকা আগে নদীগর্ভে ছিল। চরাইকোলযুক্ত গ্রামের নামগুলো তার প্রমাণ। নদী সরে গেলে পরে থাকে চর বা চরা এবং কোল। এই চরা ও কোল ঘেরা জমিনে গড়ে উঠেছে পুঁটিয়া-চরাইকোল, হয়তাপাড়া চরাইকোল, শিবরামপুর-চরাইকোল, পুরাতন চরাইকোল ইত্যাদি গ্রামসমূহ। অতি ক্ষুদ্র হ্রদের মত পানিভরা বিলগুলো দেখে বুঝা যায় এককালে এগুলো নদী-পরিত্যক্ত কোল ছিল। কুমারখালীর কয়েকটি বিলের নাম - করাতকান্দির বিল, জিয়ালার বিল, চাঁদপুরের বিল, বহলবাড়ীয়ার বিল, সোনাপাতিলার বিল, দলুয়ার বিল, বাঁশআড়ার বিল।

পুর্বে কুমারখালীর থানা-দফতর ছিল গড়াই নদীর দক্ষিণ পাড়ে ভালুকা গ্রামে। পরে থানা ভালুকা থেকে কুমারখালীতে উঠে আসে। এখনও ভালুকা গ্রামকে লোকে থানা ভালুকা বলে। ১৮২৮ সারে পাবনা জেলার গণ্ডীর মধ্যে কুষ্টিয়া ও খোকসায় দুটি থানা ছিল। একটি ফাঁড়ি ছিল চরাইকোলে। বর্তমানে কুমারখালী থানার অধীনে পান্টি ও শিলাইদহে ফাঁড়ি আছে। ১৮৫৭ সালে কুমারখালী, খোকসা, পাংসা ও বালিয়াকান্দি থানা নিয়ে কুমারখালীতে মহকুমার সৃষ্টি হয়। এটা ছিল পাবনা জেলার মহকুমা। কিছুদিন আগেও মহকুমা কারাগারের ধ্বংসাবশেষ দেখা যেত এখানে। ১৮৭১ সালে কুমারখালী পাবনা থেকে নদীয়ার গণ্ডিতে এসে তার মহকুমার মর্যাদা হারিয়ে ফেলে।

কুমারখালী বাংলাদেশের সেরা তাঁত-কাপড়ের হাট। হাজার হাজার তাঁতি ও মহাজন আসে হাট করতে। লাখ লাখ টাকার পণ্য বিক্রি হয় প্রতি হাটে। স্থানীয় কারিগরেরা বিভিন্ন ধরণের শাড়ী ও ছিট কাপড় বুনে তাদের খঠ-খটি তাঁতে। শহরের অনেকগুলো ফ্যাক্টরীতে উৎপন্ন হয় নকশাকাটা রঙীন চাদর। বিসিক মিলেও তৈরী হয় শাড়ী, লুঙ্গী ইত্যাদি। বাংলার প্রথম কাপড়ের কল মোহিনী মিলস(স্থাঃ ১৯০৭ সালে)-এর প্রতিষ্ঠাতা ডেপুটি ম্যাজিষ্ট্রেট মোহিনীমোহন চক্রবর্তীর বাড়ী পৌর এলাকার এলংগী মহল্লায় (বর্তমানে মিলপাড়া)। বৃটিশ আমলে এখানকার তৈরী রেশম ও তসরের খ্যাতি দুরদূরান্তে ছড়িয়ে পড়েছিল।

১৮৫৬ সালে মথুরানাথ কুণ্ডু নীলকুঠী কিনে একটি হাইস্কুল কায়েম করেন। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বছর আগে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। একটি মহাবিদ্যালয়সমেত অনেকগুলো হাইস্কুল আছে এই থানায়। তেবাড়িয়া, পান্টি ও ডাঁসার তিনটি জুনিয়ার মাদ্রাসা লুপ্ত হয়ে গেছে ইতিপূর্বে। বর্তমানে আলিয়ানেসাবের দুটি মাদ্রাসা আছে কুমারখালী ও বাঁশগ্রামে। পৌর এলাকার দরিদ্র-বান্ধব লাইব্রেরী, উন্নয়ন মজলিশ এবং শিলাইদহের মহর্ষি পাঠাগার বিভিন্ন সময়ে পড়ুয়াদের জ্ঞানপিপাসা মিটিয়েছে।

গ্রামবার্তা প্রকাশিকা, শৈবী, কোহিনুর ও বংগীয় তিলিসমাজ পত্রিকা কুমারখালীর কয়েকটি সাময়িকপত্র। সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে কাঙাল হরিনাথ, প্রফুল্লকুমার সরকার, মীর মশাররফ, নারায়ণকৃষ্ণ মজুমদার, কবিরাজ আতিয়ার রসুল সিদ্দিকী, আমজাদ হোসেন প্রমুখের নাম বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।

খোকসার সৈয়দ আবদুল কুদ্দুস রুমী প্রতিষ্ঠিত 'আনজুমানে ইত্তেফাক ইসলাম'(১৯০৪) নদীয়া জেলার অন্যতম প্রধান সমাজসংস্কারমূলক সংস্থা। দুর্গাপুরে প্রধান দফতর থাকলেও নানাস্থানে এর শাখা ছিল। মিয়া সাহেবদের বিরাট আমবাগানে আনজুমানের সভা-সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতো। সেহেতু এ জায়গা এখনও "সভার বাগান" নামে পরিচিত। সম্মেলন উপলক্ষে ফুরফুরার পীর আবুবকর সিদ্দিকী, শান্তিপুরের কবি মোজাম্মেল হক ও নদীয়ার জেলা ম্যাজিষ্ট্যাট দুর্গাপুর এসেছিলেন । তালোয়া 'আঞ্জুমানে তরক্কীয়ে ইসলাম' অন্য একটি জনকল্যাণমুলক প্রতিষ্ঠান।

প্রায় প্রত্যেকটা আন্দোলনের সঙ্গে কুমারখালীবাসী জড়িত। দুর্গাপুরের কাজী মিয়াজান মোজাহেদ আন্দোলনের শীর্সস্থানীয় নেতা ছিলেন। সামরিক আদালতের বিচারে তাঁর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত হয়। গোঁসাইযেংগী ও ধোকড়াকোল গ্রামে কয়েকজন মোজাহেদ ছিলেন।

কুমারখালী, শিলাইদহ, ধোকড়াকোল ইত্যাদি গাঁয়ে নীলকুঠি ছিল। খাজনা বন্ধ ও নীল চাষ বিরোধী আন্দোলনে কুমারখালী এলাকার লোকদের অবদান উল্লেকযোগ্য। আন্দোলনের নেত্রী ছছিলেন আমলার জমিদার প্যারীসুন্দরী দাসী। তাঁর সহযোগী ছিলেন সাঁওতার শাহ গোলাম আজম ও শালঘর মধুয়ার শেখ আমির আলি। সন্ত্রাসবাদী আন্দোলনে যুগান্তর দলের নেতা কয়ার যতীন্দ্রনাথ মুখোপ্যাধ্যায়ের (বাঘা যতীন) নাম শ্রদ্ধার সংগে স্মরণীয়। তিনি উড়িষ্যার বালেশ্বরে ইংরেজ বাহিনীর সংগে যুদ্ধে শহীদ হন। আরেক সন্ত্রাসবাদী বীরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপ্যাধ্যায়। দক্ষিণেশ্বর বোমার মামলায় তাঁর দ্বীপান্তর হয়। গোঁড়া মৈত্রেয়, অন্নদা রায়, নিবারণ রায়ও সন্ত্রাসবাদী দলের সদস্য ছিলেন।

হক-মন্ত্রীসভার প্রভাবশালী সদস্য শামসুদ্দিন আহম্মদ ছিলেন বঙ্গীয় কৃষকপ্রজা আন্দোলনের প্রাণস্বরুপ। প্রজা-সমিতির সম্পাদক এবং কৃষক-নেতারুপে নিপীড়িত চাষীদের কল্যাণে আজীবন সংগ্রাম করে গেছেন। শামসুদ্দিনের অগ্রজ সংগ্রামী আলেম মৌলভী আফসার উদ্দিন ছিলেন বাউল-বিরোধী আন্দোলনের নেতা। তাঁর সহকর্মীদের মধ্যে সুন্সী এমদাদ আলি, মুন্সী আহম্মদ আলি, খন্দকার খোরশেদ আলি ও খোঃ আবদুস সাত্তার প্রধান। কুষ্টিয়ার কুওয়াতুল ইসলাম মাদ্রাসা ও মসজিদ, আল্লার দরগা মসজিদ, বানিয়াপাড়া হাইস্কুল ইত্যাদি মৌলভী সাহেবের সমাজসেবার নিদর্শন।

কুমারখালী অঞ্চলে যেসব সুফি-সাধক ওলী-দরবেশ ইসলামের আলো ছড়িয়েছেন তাঁদের মধ্যে কয়েকজন ছিলেনঃ মাহ সোনাবন্ধু, মুল্লুক খোরশেদ, বুড়ো দেওয়ান চাঁদ আলি মাহ, শাহ দরবেশ, মীর রুহুল্লাহ, মাহ আউলিয়া, পাঁচু খোন্দকার ও করিম শাহ। বিভিন্ন স্থানে এঁদের মাজার-মকবেরা আছে।

মীর মশাররফ হোসেন, জলধর সেন, অক্ষয়কুমার মৈত্রেয়, শিবচন্দ্র বিদ্যার্ণব, গগন হরকরা, বসন্তকুমার পাল, হরিপদ গঙ্গোপাধ্যায়, প্রফুল্লকুমার সরকার, ভোলানাথ মজুমদার, শচীন্দ্রনাথ অধিকারী, খোন্দকার আজহারুল ইসলাম, আকবর হোসেন, প্রমুখ কবি-সাহিত্যিক কুমারখালী থানার অধিবাসী।

জাতীয় অধ্যাপক ডঃ কাজী মোতাহার হোসেন জন্মগ্রহণ করেন মাতুলালয় লক্ষীপুরে। তিনি প্রাথমিক শিক্ষাও লাভ করেন এখানেই। প্রখ্যাত চিন্তাবিদ কাজী আবদুল ওদুদের জন্মও তাঁর মাতুলালয় হোগলা গ্রামে। তিনি জগন্নাথপুর স্কুলে পড়াশুনা করেছেন।

বামচরণ কর্মকার ও মাসুদ করিম দুজন বিশিষ্ট গীতিকার। বামচরণ কলকাতা বেতারের সংগে যুক্ত ছিলেন। অন্যান্য শিল্পীদের মধ্যে নির্মলকুমার মজুমদার বেতারশিল্পী। মাজগ্রামের আমিন শাহ গায়ানী, কল্যাণপুরের আব্বাস মিয়া, বাগুলাটের আতা খাঁ জনপ্রিয় কবিয়াল। বাটিকামারার গ্রাম্যকবি গোলাম রব্বানী পথের সাহিত্য রচয়িতা হিসাবে পরিচিত।

কুমারখালীর বিশিষ্ট ব্যক্তিরা হচ্ছেনঃ কাজী গোলাম রসুল ওরফে রতি মিয়া, রায়বাহাদুর বিশ্বম্ভর রায়, সৈয়দ আবুল ফজল, মুন্সী বিলায়েত হোসেন, সুরেন্দ্রনাথ সরকার, মুন্সী নুরউদ্দিন আহম্মদ, যোগেন্দ্রনাথ সরকার, পূর্ণচন্দ্র লাহিড়ী, খানবাহাদুর খবির উদ্দিন, খান সাহেব দাদ আলী, জমিদার আবদুল গনি, রবীন্দ্রনাথ সাহা, ডাঃ রেবতীমোহন সাহা, তোফাজ্জেল হোসেন, কবিরাজ গোলাম সরওয়ার ও গোলাম কিবরিয়া প্রমুখ।

বানিয়াকান্দিতে শাহী আমলের একটি মসজিদ আছে। খোরশেদপুরে মুল্লুক খোরশেদের মাজার ও গোপীনাথদেবের মন্দির আছে। মন্দির, মঠ ও দীঘি নির্মাণ করান নাটোরের জমিদার রাণী ভবানী। দরবেশের মাজারটি পাকা করে মাসোহারা দেওয়ার ব্যবস্থা করেন কবি রবীন্দ্রনাথ। ছেঁউড়িয়া গ্রামের লালনের সমাধিও বাঁধিয়ে দেন তিনি।

কুমারখালী ও তার আশপাশে বেশ কিছু সর্দার সম্প্রদায়ের লোক বাস করে। তাদের উর্দ্ধতন পুরুষেরা বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী ছিল বলে জানা যায়। রেলষ্টেশন সংলগ্ন গোরস্তান দেখে মনে হয় এককালে বসবাসকারী খৃষ্টানদের কথা।

তথ্য সূত্রঃ
কুষ্টিয়াঃ ইতিহাস-ঐতিহ্য
আবুল আহসান চৌধুরী
কুষ্টিয়া সাহিত্য পরিষদ

মন্তব্য


  • কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০তম বর্ষপূর্তি উদযাপন

    কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০তম বর্ষপূর্তি উদযাপন

  • কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০তম বর্ষপূর্তি উদযাপন

    কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০তম বর্ষপূর্তি উদযাপন

  • কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০তম বর্ষপূর্তি উদযাপন

    কুষ্টিয়া পৌরসভার ১৫০তম বর্ষপূর্তি উদযাপন

  • পহেলা বৈশাখ ১৪২৫, কুষ্টিয়া পৌরসভা
  • পহেলা বৈশাখ ১৪২৫, মিরপুর কুষ্টিয়া
  • লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

    লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

  • লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

    লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

  • লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

    লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

  • লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

    লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

  • লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

    লাঠিখেলা উৎসব ২০১৭

  • কুষ্টিয়ার ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ

    কুষ্টিয়ার ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ

  • ফকির লালন শাঁইজীর স্মরণে দোলপূর্ণিমা উৎসব ২০১৬

    ফকির লালন শাঁইজীর স্মরণে দোলপূর্ণিমা উৎসব ২০১৬

  • ফকির লালন শাঁইজীর স্মরণে দোলপূর্ণিমা উৎসব ২০১৬

    ফকির লালন শাঁইজীর স্মরণে দোলপূর্ণিমা উৎসব ২০১৬

  • ফকির লালন শাঁইজীর স্মরণে দোলপূর্ণিমা উৎসব ২০১৬

    ফকির লালন শাঁইজীর স্মরণে দোলপূর্ণিমা উৎসব ২০১৬

  • ফকির লালন শাঁইজীর স্মরণে দোলপূর্ণিমা উৎসব ২০১৬

    ফকির লালন শাঁইজীর স্মরণে দোলপূর্ণিমা উৎসব ২০১৬

  • ফকির লালন শাইজির ১২৫তম তিরোধান দিবস

    ফকির লালন শাইজির ১২৫তম তিরোধান দিবস

  • ফকির লালন শাইজির ১২৫তম তিরোধান দিবস

    ফকির লালন শাইজির ১২৫তম তিরোধান দিবস

  • ফকির লালন শাইজির ১২৫তম তিরোধান দিবস

    ফকির লালন শাইজির ১২৫তম তিরোধান দিবস

  • ফকির লালন শাইজির ১২৫তম তিরোধান দিবস

    ফকির লালন শাইজির ১২৫তম তিরোধান দিবস

  • ফকির লালন শাইজির ১২৫তম তিরোধান দিবস

    ফকির লালন শাইজির ১২৫তম তিরোধান দিবস

নতুন তথ্য

সংগীতশিল্পী খালিদ হোসেন বৃহস্পতিবার, 23 মে 2019
সংগীতশিল্পী খালিদ হোসেন খালিদ হোসেন (জন্মঃ- ৪ ডিসেম্বর ১৯৩৫ - মৃত্যুঃ- ২২ মে ২০১৯) ছিলেন একজন বাঙালি নজরুলগীতি শিল্পী এবং নজরুল গবেষক। তিনি নজরুলের ইসলামী গান...
তরমুজের উপকারিতা মঙ্গলবার, 21 মে 2019
তরমুজের উপকারিতা তরমুজ (ইংরেজি: Watermelon) (Citrullus lanatus (কার্ল পিটার থুনবার্গ) একটি গ্রীষ্মকালীন সুস্বাদু ফল। ঠান্ডা তরমুজ গ্রীষ্মকালে বেশ জনপ্রিয়। এতে...
বাংলা ভাষা আন্দোলন বরাক উপত্যকা Barak Valley of Bangla Language Movement আসামের বরাক উপত্যকার বাংলা ভাষা আন্দোলন ছিল আসাম সরকারের অসমীয়া ভাষাকে...
আমের নামকরণের ইতিহাস আম (Mango) গ্রীষ্মমন্ডলীয় ও উপগ্রীষ্মমন্ডলীয় দেশগুলিতে ব্যাপকভাবে উৎপন্ন একটি ফল। Anacardiaceae গোত্রের...
হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) - মক্কা জীবন আরব জাতি (الشعب العربى وأقوامها) মধ্যপ্রাচ্যের মূল অধিবাসী হ’লেন আরব জাতি। সেকারণ একে আরব উপদ্বীপ (جزيرة العرب) বলা...
ঢেঁড়স ঢেঁড়শ (অন্য নাম ভেন্ডি) মালভেসি পরিবারের এক প্রকারের সপুষ্পক উদ্ভিদ। এটি তুলা, কোকো ও হিবিস্কাসের সাথে সম্পর্কিত। ঢেঁড়শ গাছের...
নবাব সলিমুল্লাহ শুক্রবার, 10 মে 2019
নবাব সলিমুল্লাহ নবাব সলিমুল্লাহ (জন্ম: ৭ই জুন ১৮৭১ - মৃত্যু: ১৬ই জানুয়ারি ১৯১৫) ঢাকার নবাব ছিলেন। তার পিতা নবাব...
কাল্পনিক নৌকা আদম (আঃ) থেকে নূহ (আঃ) পর্যন্ত দশ শতাব্দীর ব্যবধান ছিল। যার শেষদিকে ক্রমবর্ধমান মানবকুলে শিরক ও...
ছবির গান রেকডিং এর সময় সুবীর নন্দী (জন্মঃ ১৯ নভেম্বর ১৯৫৩ মৃত্যুঃ ৭ মে ২০১৯) ছিলেন একজন বাংলাদেশী সঙ্গীতশিল্পী। তিনি মূলত চলচ্চিত্রের গানে কন্ঠ দিয়ে খ্যাতি অর্জন করেন।...
বেল খাওয়ার ১৫টি উপকারিতা জেনে নিন আর থাকুন ফিট বেলের পুষ্টিগুণ ও উপকারিতা বেল কিন্তু সেই প্রাচীন সময় থেকে আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে উপকারী ফল হিসেবে...

Subscribe Our Newsletter

welcome to our newsletter subscription

প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রকাশকঃ- সালেকউদ্দিন শেখ সুমন

Made in kushtia

Go to top